প্রফেশনাল ভিডিও এডিটিং প্রশিক্ষণ কোর্স ঢাকা, খুলনা, বাংলাদেশ।

ভিডিও এডিটিং কি?

ভিডিও এডিটিং হল এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে এক বা একাধিক ভিডিও ফুটেজ এডিটর পছন্দ অনুযায়ী সাজিয়ে একটি পরিপূর্ণ ভিডিও তৈরি করেন। চিত্রগ্রাহকদের ধারণ করা বিভিন্ন প্রকার ভিডিও ফুটেজ কাটছাঁট করে দৃশ্যের পর দৃশ্য সাজিয়ে দর্শকদের দেখার উপযোগী করে তোলাই হচ্ছে ভিডিও এডিটরদের কাজ। একজন ভিডিও এডিটরকে ভিডিওর টাইটেল, কালার কারেকশন, গ্রাফিক্স, সাউন্ড মিক্সিং, ইফেক্ট সহ নানান ধরণের কাজ করতে হয়, বিশেষ করে নন লিনিয়ার বা কম্পিউটার এডিটিং এর জন্য।

ভিডিও এডিটিং একটি দৃষ্টি সংক্রান্ত শিল্প। অনেকটা ফুলের তোড়া তৈরি করার মত। অনেক গুলো ফুল থেকে বেছে নেওয়া হয় কয়েকটি ফুল, চমৎকার কিছু পাতা, একটি সুন্দর ঝকঝকে ঝুড়ি তারপর সবগুলোর নিজস্ব সৌন্দর্য্য ঠিক রেখে আরো সুন্দর করে তোলা। যদিও আমরা কখনোই ভাবিনা ফুলের তোড়াটা কে বানিয়েছে কিন্তু তোড়াটা সুন্দর হয়েছে সেটিই বলি। চলচ্চিত্র, মিউজিক ভিডিও, নাটক, সংবাদ, তথ্য চিত্র, টেলিভিশন বিজ্ঞাপন ইত্যাদি ক্ষেত্রে ভিডিও এডিটিং এর প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি।

কেন আপনি ভিডিও এডিটিং শিখবেন?

ভিডিও এডিটিং এমন একটি পেশা, যেখানে সব সময় সৃজনশীলতার বিকাশ ঘটানো সম্ভব। প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে নিজেকে আপগ্রেড করে নিতে পারলে আপনিও ভিডিও এডিটিং পেশায় ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন। ভিডিও এডিটিং পেশায় রয়েছে ক্যারিয়ারে খ্যাতি, সুনাম এবং পরিচিতির পাশাপাশি উজ্জ্বল ভবিষ্যতের হাতছানি। বিশ্বব্যাপীতো বটেই, তাছাড়া বাংলাদেশেও রয়েছে ভিডিও এডিটিং পেশায় ক্যারিয়ার গড়ার বিশাল ক্ষেত্র। আজ থেকে ১৫ বছর আগেও মানুষ ভাবেনি ইলেকট্রনিক মিডিয়া গুলো এই পর্যায়ে চলে আসবে। ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সবচেয়ে বড় ক্ষেত্র হল টেলিভিশন চ্যানেল গুলো। আমাদের দেশে এখন একাধিক সরকারি ও বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল রয়েছে।

প্রতিদিন টিভি চ্যানেল গুলোতে সংবাদের পাশাপাশি অসংখ্য অনুষ্ঠান, নাটক, ম্যাগাজিন প্রচারিত হয়। এইসব অনুষ্ঠান টিভি চ্যানেল ছাড়াও বিভিন্ন প্রযোজনা সংস্থাও নির্মাণ করে থাকে। এছাড়া টেলিভিশনে প্রচারিত বিজ্ঞাপন সমূহ নির্মাণ করে থাকে বিভিন্ন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। একারণে দক্ষ ভিডিও এডিটররা উচ্চ বেতনে চলে যাচ্ছেন টিভি চ্যানেল গুলোতে। ফলে বেসরকারি ভাবে অনুষ্ঠান নির্মাণের যে কারিগরি প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে, সেখানে ভিডিও এডিটরদের চাহিদা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার জন্য ভিডিও এডিটিং জানা ছেলেমেয়েরা খুব সহজেই এইসব প্রতিষ্ঠানে চাকরির সুযোগ পেয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও আমাদের দেশে ভিজ্যুয়াল মিডিয়া সম্প্রসারণের সাথে সাথে ক্রমেই বাড়ছে ভিডিও এডিটরদের চাহিদাও।

দেশের সবগুলো টিভি চ্যানেলেই দক্ষ ভিডিও এডিটরদের কাজের সুযোগ রয়েছে। তাছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন এডিটিং ফার্ম। ফুলটাইম এবং পার্টটাইম দুই ভাবেই ভিডিও এডিটর হিসেবে কাজ করা যায়। কেউ চাইলে অন্য চাকরির পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারেন ভিডিও এডিটর হিসেবে। এছাড়া দেশের বাইরেও ভিডিও এডিটিং কাজের অনেক চাহিদা রয়েছে। ইউরোপ, আমেরিকাসহ মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিটি দেশেই আলাদা আলাদা ভাবে রয়েছে কয়েকশ টেলিভিশন চ্যানেল। এইসব টেলিভিশন চ্যানেলে নিজ দেশের দক্ষ জনবল নিয়ে কাজ করতে তাদের বড় অংকের খরচ বহন করতে হয়। সেখানে আমাদের মত তৃতীয় বিশ্বের দক্ষ জনশক্তি দিয়ে অপেক্ষাকৃত কম খরচে কাজ করিয়ে নিচ্ছেন তারা।

ফলে আমাদের এই অঞ্চলের দক্ষ ভিডিও এডিটররা বিশেষ করে ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক টিভি মিডিয়ায় ভিডিও এডিটর হিসেবে চাকরি পেয়ে যাচ্ছে খুব সহজেই। এইসব দেশে ভিডিও এডিটিং পেশার বেতন কাঠামোও অনেক ভাল। কাজের দক্ষতার উপর বেতনের পরিমাণ নির্ভর করে। দেশে অথবা বিদেশে যেখানেই কাজ করুন না কেন, সবার আগে দরকার এই বিষয়ে সঠিক দক্ষতা অর্জন। ভাল কোন প্রতিষ্ঠান থেকে কাজ শিখে ছেলে মেয়েরা দেশেই ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা বেতনে চাকরি জুটিয়ে নিচ্ছেন। কেউ কেউ আবার চাকুরীর পাশাপাশি অন্য প্রতিষ্ঠানে ভিডিও এডিটিং এর কাজ করছেন। সম্ভাবনাময় এই সেক্টরে দক্ষ জনবল তৈরিতে আইটিস্কিলআপ ইন্সটিটিউট চালু করেছে প্রফেশনাল ভিডিও এডিটিং কোর্স।

প্রফেশনাল ভিডিও এডিটিং কোর্স হাইলাইটসঃ

  • ভিডিও এডিটিং ইন্ট্রোডাকশন।
  • ভিডিও ইন্ট্রো ডিজাইন।
  • ভিডিও এডিটিং এর ভিজুয়াল।
  • ভিডিও এডিটিং এর অডিও ইফেক্ট।
  • স্মার্ট ফুটেজ ডিটেকশন।
  • ভিডিও ক্যাপ্সন সেটিং।
  • ভিডিও এডিটিং ফিল্টার।
  • রিটাচিং ইফেক্টস।
  • স্ক্রিন ক্যাপচার ভিডিও টিউটরিয়াল মেকিং।
  • টেক্সট, ফিল্টার ইফেক্ট, স্ক্রিন ডিটেকশন ট্যাবিলাইজেশন।
  • প্রিমিয়াম ভিডিও ইফেক্ট এবং বিভিন্ন ফরম্যাটে ভিডিও এডিটিং।
  • ফ্রেম বাই ফ্রেম প্রভিউ, স্পিড কন্ট্রোল, প্লে ইন রিভার্স।
  • অডিও সেপারেশন, অটো এনহেঞ্চ।
  • এছাড়াও এডিটিং সম্পর্কে আরও অনেক কিছুই থাকছে এই কোর্সটিতে।

কোর্সটিতে অংশগ্রহণ কারীরা যেসকল সুবিধা সমূহ পাবেনঃ

  • প্রতিদিনের লেকচার, সীট আকারে প্রদান করা হবে।
  • প্রতিটি ক্লাস শেষে ক্লাসটির প্রেজেন্টেশন দিয়ে দেওয়া হবে।
  • ভিডিও এডিটিং এর উপর কিছু বাংলা ভিডিও টিউটোরিয়াল প্রদান করা হবে।
  • সকলেই ভিডিও এডিটিং এর রিয়েল লাইফ প্রজেক্টে অংশ গ্রহণের সুবিধা পাবে।
  • ভিডিও এডিটিং এর কাজ প্রাকটিস করার জন্য প্রয়োজনীয় সোর্স ফাইল দিয়ে দেওয়া হবে।
  • প্রফেশনাল ভিডিও এডিটরদের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

কোর্সের সময়সীমাঃ

কোর্সের মোট সময় দুই মাস এর মধ্যে দেড় মাসের প্রশিক্ষণ এবং ১৫ দিনের রিয়েল লাইফ প্রজেক্ট।

প্রশিক্ষণ ফিঃ

৩,০০০ টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি সহ মোট কোর্স ফি ৬,০০০ টাকা। এককালীন যারা ৬,০০০ টাকা দিতে না পারবে তাদের জন্য দুইটি ইন্সটলমেন্টে দেওয়ার সুযোগ রয়েছে। প্রথম ইন্সটলমেন্টে রেজিস্ট্রেশন ফি ৩,০০০ টাকা এবং পরবর্তি মাসে কোর্স ফি ৩,০০০ টাকা দিতে হবে।

ভর্তি এবং রেজিস্ট্রেশনের নিয়মঃ

কোর্সটিতে অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক ব্যাক্তিদের অনলাইন অথবা মোবাইল এর মাধ্যমে এডমিনিস্ট্রেশন বিভাগে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। অনলাইন অথবা মোবাইল এর মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন সফল হওয়ার পর আমাদের এডমিনিস্ট্রেশন থেকে ফোন করে বিস্তারিত জানান হবে। কোর্সের প্রথম ক্লাশের দিন অবশ্যই উল্লেখিত রেজিস্ট্রেশন ফি সহ অংশগ্রহন করতে হবে।

Top