যাত্রা শুরু করল বাংলাদেশ সরকারের ই-শপ

ই-শপ, ই-কমার্স, ই-কমার্স ওয়েবসাইট, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি, বাংলাদেশ সরকারের ই-শপ, প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক

ই-কমার্সের সকল সুবিধা নিয়ে মানুষের দৌড়গোড়ায় পৌঁছাতে ই-শপ কর্মসূচি উদ্বোধন করেছে বাংলাদেশ সরকার। এর আওতায় দেশের প্রতিটি জেলায় একটি করে ই-শপ খোলা হবে। এইসব ই-শপ যুক্ত থাকবে একটি কেন্দ্রীয় ই-কমার্স ওয়েব সাইটের সাথে।

গতকাল তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। এই ই-শপ ব্যবহার করে উদ্যোক্তারা মধ্যস্বত্ব ভোগীদের এড়িয়ে সরাসরি অন্য কোন অঞ্চলের ব্যবসায়ীদের কাছে পণ্য বিক্রি করতে পারবেন।

এই অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ই-শপ একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। এই পদ্ধতিতে কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে গ্রামের স্বল্প আয়ের সুবিধা বঞ্চিত জনগোষ্ঠীকে কাঙ্ক্ষিত আয়ের পথে নিয়ে আসা সম্ভব। ই-শপ গ্রামের সুবিধা বঞ্চিত জনগোষ্ঠীকে আর্থিক স্বচ্ছলতা এনে দেওয়ার পাশাপাশি দেশের অর্থনীতিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, চীন এর জ্যাকমা কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত আলীবাবা মাত্র অল্প সময়ে বিশ্বের এক নম্বর ই-কমার্স কোম্পানিতে পরিণত হয়েছে। আলীবাবা বর্তমানে ট্রিলিয়ন ডলার কোম্পানি। আমাদের উদ্যোক্তারাও যথেষ্ট পরিশ্রমী ও মেধাবী এবং বাংলাদেশ সরকার তাদের সেই উদ্যোগে সহযোগিতাও করছে।

বাংলাদেশের এই ই-কমার্স উন্নয়নে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ই-কমার্স খাতের জন্য একটি নীতিমালা প্রণয়ন করা হচ্ছে। অনলাইন পেমেন্ট সিস্টেম বাড়ানোর জন্য বেশ কয়েকটি গেটওয়ে চালু হয়েছে এবং আন্তর্জাতিক কিছু গেটওয়ে কাজও করছে। ধীরে ধীরে আমাদের এই ই-কমার্স খাতের পরিসর বাড়ছে।

এক সময় ট্রিলিয়ন ডলারের ই-কমার্স কোম্পানি হবে আমাদের দেশেই। সেই লক্ষ্য নিয়েই কাজ করছে বাংলাদেশ সরকার। ৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে আগামী ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই ই-শপ কর্মসূচি বাস্তবায়ন হবে। এই কর্মসূচির আওতায় এক হাজার উদ্যোক্তাকে ই-কমার্স বা ই-শপ পরিচালনার বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে, প্রশিক্ষক হিসেবে গড়ে তোলার কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ই-শপ প্রকল্প বাস্তবায়নে সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে রয়েছে এফএসবি (ফিউচার সলিউশন ফর বিজনেস)। এফএসবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাদেকা হাসান জানান, এই কর্মসূচির আওতায় কেন্দ্রীয় ই-কমার্স ওয়েব সাইটে প্রতিটি জেলার সব পণ্য ও সেবা কার্যক্রম দেখানোর ব্যবস্থা রাখা হবে। অনলাইনে পণ্য কেনা ও মূল্য পরিশোধের ব্যবস্থা রাখা হবে। আগামী ডিসেম্বর থেকে এই কর্মসূচির আওতায় গ্রাহকদের সেবা দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশা করছেন সাদেকা হাসান।

এছাড়াও এই অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের কর্মসূচি পরিচালক আক্তার হোসেন ও নির্বাহী পরিচালক সাব্বির বিন শামস। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন মেহেরপুরের সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন, রংপুর-২ এর সংসদ সদস্য আবুল কালাম মোঃ আহ্সানুল হক চৌধুরী, আইসিটি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোঃ হারুনুর রশিদ, আইসিটি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব পার্থ প্রতিম দেব ও সুশান্ত কুমার সাহা প্রমুখ।

Tags: , , , , ,

Related posts

Leave a Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.




Top