কম্পিউটার গেমে মেধা বিকাশ

গেমস, কম্পিউটার গেমস, ভিডিও গেমস, অস্ট্রেলিয়ার আরএমআইটি ইউনিভার্সিটি, আলবার্টো পোসো, ওয়েস্টার্ন সিডনি ইউনিভার্সিটি

আপনার সন্তান যদি কম্পিউটার গেমস এর ভক্ত হয়, তাহলে আপনার উচিত সেটা ভাল চোখে দেখা। গেমস এর বিভিন্ন প্রকার কলাকৌশল, ছাত্র ছাত্রীদের স্কুলের পরীক্ষার ফলাফলে নাম্বার বাড়াতে সাহায্য করে। সোশ্যাল মিডিয়া বা ফেইসবুকে আসক্তির ফলাফল কিন্তু ভিন্ন রকম, ধনাত্মকের চেয়ে ঋণাত্মকের ফলটায় বেশি।

অস্ট্রেলিয়ার আরএমআইটি ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক আলবার্টো পোসোর একটি গবেষণায় দেখা গেছে, যে তরুণ তরুণেরা নিয়মিত অনলাইনে বসে ভিডিও গেমস খেলে তাদের পরীক্ষার ফলাফল ভাল হয়। কিন্তু যে শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগর মাধ্যমে নিয়মিত সক্রিয় থাকে, তারা সাধারণত বিজ্ঞান ও গণিতে কম নাম্বার পায়। প্রতিবেদনে পোসো আরও লিখেছেন, যে শিক্ষার্থীরা কখনো সামাজিক যোগাযোগর মাধ্যম ব্যবহার করেনি, তাদের তুলনায় যারা নিয়মিত ব্যবহার করে, তারা গণিতে গড়ে ২০ নাম্বার কম পায়।

১৫ বছর বয়সী স্কুল পড়ুয়া ১২০০০ শিক্ষার্থী এবং তাদের বিজ্ঞান ও গণিতে প্রাপ্ত নাম্বার এবং কোন কিছু পাঠ করার দক্ষতা পর্যবেক্ষণ করে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছান তিনি। তবে তার এই তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে ২০১২ সালে। বর্তমানের সাথে কিছুটা পাথক্য থাকতে পারে বলেও মত দিয়েছেন আলবার্টো পোসো।

ফেডারেশন ইউনিভার্সিটি অস্ট্রেলিয়ার স্কুল অব এডুকেশনের উপপ্রধান নিকোলা জনসনের মতে, অনেক গেমস আছে যেগুলো কৌশল খাটিয়ে খেলতে হয়, অনেক সমস্যার সমাধান করতে হয়, লক্ষ্য নির্ধারণ করে তা পূর্ণ করে আরো দক্ষ করে গড়ে তুলতে হয় নিজেকে। এই ধরনের মন মানসিকতা নিশ্চয় কোন কিছু অর্জন এবং শেখায় সাহায্য করবে।

ওয়েস্টার্ন সিডনি ইউনিভার্সিটির প্রযুক্তি গবেষক জোয়ানা অরল্যান্ডো গেমস এর মানও বিবেচনায় আনতে বলেন। তিনি বলেন, আপনাকে শুধু খেলায় দক্ষতা দেখলেই চলবে না, বরং গেমস এর সার্বিক বিষয় বস্তুও মাথায় রাখতে হবে।

সামাজিক যোগাযোগর মাধ্যম সম্পর্কে এমন ঢালাও সিদ্ধান্তের পরিপন্থী নিকোলা জনসন। তার মতে, অনেক ভাল শিক্ষার্থী আছে যারা নিয়মিত সামাজিক যোগাযোগর মাধ্যম ব্যবহার করে। জোয়ানা অরল্যান্ডো বরং সামাজিক যোগাযোগর মাধ্যমকেই সম্ভাব্য শেখার জায়গা হিসেবে গড়ে তোলার পক্ষে। সূত্রঃ ম্যাশেবল

Tags: , , , ,

Related posts

Leave a Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.




Top