প্রফেশনাল গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং কোর্স ঢাকা, খুলনা, বাংলাদেশ।

গুগল অ্যাডসেন্সঃ

অ্যাডসেন্স হচ্ছে অনলাইন তথা ইউটিউব থেকে আয় করার সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং বড় মাধ্যম। আমরা অনেকেই জানি, ইউটিউব হচ্ছে গুগলের একটি সেবা। আবার গুগল অ্যাডসেন্সও হচ্ছে গুগলের আরেকটি সেবা। তাই ইউটিউব চ্যানেল এর ব্যাপারে গুগলের প্রাধান্য অনেক বেশি। এমনকি আপনি মাত্র কয়েকটি ছোট খাটো ভিডিও দিয়ে গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট এপ্রুভ করাতে পারবেন। আর সব থেকে মজার ব্যাপার হচ্ছে অ্যাডসেন্স এপ্রুভ পাওয়ার জন্য ইউটিউব চ্যানেল হচ্ছে অন্যতম একটি সহজ পদ্ধতি। সেরা আয়কৃত ব্যক্তিরা শুধুমাত্র ইউটিউব চ্যানেল এ গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে প্রতি মাসে লক্ষ লক্ষ ডলার আয় করছেন।

ইউটিউব আর্নিংঃ

অনলাইনে আয়ের হাজার হাজার পদ্ধতির মধ্য থেকে ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় বর্তমানে একটি জনপ্রিয় ও কার্যকর পদ্ধতি। ইউটিউব চ্যানেল থেকে যে, ভিডিও আপলোড বা শেয়ার করে আয় করা যায় এই বিষয়টি অনেকেরই অজানা। বিশ্বের সবথেকে বড় ভিডিও শেয়ারিং ওয়েবসাইট ইউটিউব থেকে চাইলে আপনিও আয় করতে পারবেন কয়েকটি বিশেষ উপায়ে। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ভিডিও তৈরী করে নিজের ইউটিউব চ্যানেল এ আপলোড করে অথবা ভিডিও ব্লগিং করে। আজকাল অনেকেই ইউটিউব চ্যানেল এ ভিডিও আপলোড এবং ভিডিও ব্লগিং করে আয় করছেন। তাহলে আপনি কেন পারবেন না?

কেন আপনি গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং কোর্সটি করবেন?

ইউটিউব চ্যানেল এ ভিডিও আপলোড বা ভিডিও ব্লগিং এর সব চেয়ে ভাল দিক হচ্ছে, প্রথম দিন থেকেই আপনি আয় শুরু করতে পারবেন। এখানে আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোর মত বিট করে কাজের জন্য অপেক্ষা করতে হবে না। বর্তমানে প্রচলিত অনলাইন মার্কেটিংয়ের মধ্যে ভিডিও শেয়ারিং বা ভিডিও মার্কেটিং সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। অনলাইনে টাকা আয় করার যতগুলো মাধ্যম আছে তার মধ্যে সবচেয়ে সহজ ও কার্যকরী পদ্ধতি হল ইউটিউব চ্যানেল এ ভিডিও আপলোড করে আয়। একটি ইউটিউব চ্যানেল এর মাধ্যমে আপনি সিপিএ মার্কেটিং, এফিলিয়েট মার্কেটিং সহ অন্য যেকোন ধরনের মার্কেটিং এর কাজ করতে পারবেন।

বাংলাদেশে শত শত অনলাইন মার্কেটার আছেন যারা শুধুমাত্র ইউটিউব চ্যানেল এর মাধ্যমে মার্কেটিংয়ের কাজ করে প্রতি মাসে হাজার ডলার আয় করছেন। আইটিস্কিলআপ ইন্সটিটিউট এর গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং কোর্সটিতে অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে আপনি খুব অল্প সময়েই দক্ষতা অর্জন করতে পারবেন। নিয়মিত কাজ করার মাধ্যমে আপনি ইউটিউব চ্যানেল থেকে অনায়াসে আয় করতে পারবেন এবং অনলাইন জগতে সফল হতে পারবেন। এছাড়াও বিভিন্ন পণ্যের ভিডিও রিভিউ দিয়ে অথবা বিভিন্ন এ্যাডভারটাইজিং ভিডিওর মাধ্যমে আয় করতে পারবেন। পাশাপাশি ভিডিওর ডিসক্রিপশনে বিভিন্ন পণ্যের এফিলিয়েট লিংক দিয়েও আয় করতে পারবেন। এক্ষেত্রে কোন পণ্য বিক্রয় হলেই আপনি টাকা পাবেন।

মোট কথা আপনি যদি কোয়ালিটি সম্পন্ন ভিডিও তৈরী করতে পারেন, তাহলে ইউটিউব থেকে আপনিও আয় করতে পারবেন হাজার হাজার টাকা। বর্তমানে আমাদের বাংলাদেশেও ভিডিও ব্লগিং বিষয়টা বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। তবে ইউটিউব চ্যানেল এর মাধ্যমে ভিডিও ব্লগিং করার জন্য সব সময়ই আপনার ইউনিক ভিডিও ও সাউন্ড তৈরি করতে হবে। ভিডিওর বিষয় সম্পর্কে কিওয়ার্ড রিসার্চ এবং ভিডিওটি সুন্দর ভাবে বর্ণনা করার জন্য আর্টিকেল রাইটিং জ্ঞান থাকা প্রয়োজন। পাশাপাশি বেশী পরিমাণে ভিউয়ের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং জানাটাও জরুরী। ভিডিও ইডিটিং জানা থাকলে তো আরো ভাল। এই সম্ভাবনাময় খাতকে সামনে রেখে আইটিস্কিলআপ ইন্সটিটিউট চালু করেছে গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং কোর্স।

প্রফেশনাল গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং কোর্স হাইলাইটসঃ

আইটিস্কিলআপ ইন্সটিটিউট এর গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং কোর্সটি মূলত তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। প্রথম ধাপে থাকছে ইউটিউব চ্যানেল, দ্বিতীয় ধাপে থাকছে গুগল অ্যাডসেন্স এবং তৃতীয় ধাপে থাকছে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর ব্যাসিক কনসেপ্ট। আলোচ্য ধাপ গুলোতে যা যা থাকছে নিম্নে তার মধ্য থেকে কিছু উল্লেখ করা হল-

ইউটিউব চ্যানেলঃ

  • ইউটিউব ও ইউটিউব চ্যানেল এর পরিচিতি।
  • ইউটিউব চ্যানেল কেন আয়ের জন্য পছন্দ করবেন।
  • ইউটিউব চ্যানেল এ ভিডিওর মাধ্যমে আয় করার উপায় সমূহ।
  • ইউটিউব অ্যাকাউন্ট বা ইউটিউব চ্যানেল তৈরি।
  • ইউটিউব চ্যানেল এর ইন্ট্রো অথবা ভিডিও ইন্ট্রো তৈরি।
  • এসইও ফ্রেন্ডলি স্ট্রং ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও তৈরি।
  • ইউটিউব চ্যানেল এর ভিডিও অপটিমাইজেশন।
  • ইউটিউব চ্যানেল এর ভিডিও মার্কেটিং।
  • এসইও ফ্রেন্ডলি ভিডিও ডিসক্রিপশন।
  • ম্যাজিক ভিডিও টাইটেল।
  • ইউটিউব ভিডি মনিটারাইজ।
  • গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট।
  • ব্লগস্পট ব্যবহার করে নিজস্ব একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা।
  • নিজস্ব ব্লগস্পট সাইটে গুগল অ্যাডসেন্স বসানো।

ভিডিও অপটিমাইজেশনঃ

  • ভিডিও মেকিং কনসেপ্ট অ্যান্ড কিওয়ার্ড রিসার্চ।
  • ট্রেন্ড ভিডিও ও গুগোল এডওয়ার্ড এর ব্যবহার।
  • থাম্বনেইল ডিজাইন অ্যান্ড ফটো ডিজাইনিং ও এডিটিং।
  • স্লাইড ভিডিও মেকিং অ্যান্ড ডিজাইনিং।
  • ইউটিউব অ্যান্ড সার্চ ট্রেন্ড এর ব্যবহার।
  • এছাড়াও গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং সম্পর্কিত আরো অনেক কিছুই থাকছে এই কোর্সটিতে।

কোর্সটিতে অংশগ্রহণ কারীরা যেসকল সুবিধা সমূহ পাবেনঃ

ক্লাস নোটঃ প্রতিদিনের লেকচার শীট বা ক্লাস নোট প্রদান করা হবে।
প্রেজেন্টেশনঃ প্রতিটি ক্লাস শেষে ক্লাসটির প্রেজেন্টেশন দেওয়া হবে।
পিডিএফ কপিঃ গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং এর উপর লিখা কিছু পিডিএফ কপি প্রদান করা হবে।
বইঃ প্রয়োজন অনুসারে গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং এর উপর লিখা একটি বই দেওয়া হবে।
ভিডিও টিউটোরিয়ালঃ গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং এর উপর কিছু বাংলা ভিডিও টিউটোরিয়াল প্রদান করা হবে।
লাইফ প্রজেক্টঃ সকলেই গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং কোর্সের এর রিয়েল লাইফ প্রজেক্টে অংশ গ্রহণের সুযোগ পাবে।
সফটওয়্যার ও সোর্স ফাইলঃ গুগল অ্যাডসেন্স ও ইউটিউব আর্নিং এর কাজ প্রাকটিস করার জন্য প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার, সোর্স ফাইল এবং টুলস প্রদান করা হবে।
প্রফেশনাল ট্রেইনারঃ প্রফেশনাল গুগল অ্যাডসেন্স মেকার ও ইউটিউব আর্নারদের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।
সাপোর্টঃ কোর্স পরবর্তি সময়ে সারা জীবন সাপোর্টের নিশ্চয়তা।
অন্যান্যঃ ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং গাইডলাইন, স্টুডেন্টদের জন্য ফেসবুকে গ্রুপ, হাতে কলমের পাশাপাশি প্র্যাক্টিকাল প্রশিক্ষণ ইত্যাদি।

কোর্সের সময়সীমাঃ

কোর্সের মোট সময় দুই মাস এর মধ্যে দেড় মাসের প্রশিক্ষণ এবং ১৫ দিনের রিয়েল লাইফ প্রজেক্ট।

প্রশিক্ষণ ফিঃ

৩,০০০ টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি সহ মোট কোর্স ফি ৬,০০০ টাকা। এককালীন যারা ৬,০০০ টাকা দিতে না পারবে তাদের জন্য দুইটি ইন্সটলমেন্টে দেওয়ার সুযোগ রয়েছে। প্রথম ইন্সটলমেন্টে রেজিস্ট্রেশন ফি ৩,০০০ টাকা এবং পরবর্তি মাসে কোর্স ফি ৩,০০০ টাকা দিতে হবে।

ভর্তি এবং রেজিস্ট্রেশনের নিয়মঃ

কোর্সটিতে অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক ব্যাক্তিদের অনলাইন অথবা মোবাইল এর মাধ্যমে এডমিনিস্ট্রেশন বিভাগে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। অনলাইন অথবা মোবাইল এর মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন সফল হওয়ার পর আমাদের এডমিনিস্ট্রেশন থেকে ফোন করে বিস্তারিত জানান হবে। কোর্সের প্রথম ক্লাশের দিন অবশ্যই উল্লেখিত রেজিস্ট্রেশন ফি সহ অংশগ্রহন করতে হবে।

Top