ব্লগ বা ওয়েবসাইট ছাড়াও কিভাবে গুগল এ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে আয় করবেন?

এ্যাডসেন্স, এ্যাডসেন্স কি, গুগল এ্যাডসেন্স, গুগল এ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে আয়, এ্যাডসেন্স একাউন্ট, গুগল এ্যাডসেন্স একাউন্ট, এ্যাডসেন্স একাউন্ট এপ্রুভ, গুগল এ্যাডসেন্স এপ্রুভ করার উপায়, ইউটিউব, হাবপেজ, এ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট এর জন্য আবেদন

আপনার ব্যক্তিগত অভিমত ও জ্ঞানকে ইন্টারনেট এর মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়ে অনলাইন থেকে আপনি আয় করতে পারবেন। বর্তমান সময়ে ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে অর্থ উপার্জন করার জনপ্রিয় একটি উপায় হল অনলাইন অ্যাডভারটাইজিং সার্ভিস। এক্ষেত্রে গুগল এ্যাডসেন্স হল অনলাইন অ্যাডভারটাইজিং এর জন্য একটি বিশ্বস্ত ও নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। নিরাপত্তা ও সর্বোত্তম সেবা পাওয়ার জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পাশাপাশি বাংলাদেশেরও অধিকাংশ বিজ্ঞাপন দাতারা তাদের পণ্য, ব্র্যান্ড ও সার্ভিসকে প্রমোট বা প্রচার করার জন্য গুগল এ্যাডসেন্সকেই বেছে নিয়েছে।

মূলত যারা ব্লগিং করেন তাদের অধিকাংশরই প্রধান লক্ষ থাকে গুগল এ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে আয় করা। আজ আমি আলোচনা করবো কিভাবে একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে গুগল এ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে অনলাইন থেকে আয় করবেন। পূর্বে বাংলাদেশ থেকে গুগল এ্যাডসেন্স একাউন্ট পাওয়া যতটা সহজ ছিল এখন কিন্তু গুগল এ্যাডসেন্স একাউন্ট পাওয়া ততটায় কঠিন। তার মানে এই নয় যে আপনি গুগল অ্যাডসেন্স পাবেন না। হ্যাঁ আপনিও গুগল অ্যাডসেন্স পেতে পারেন। তবে গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার জন্য আপনাকে বেশ কিছু শর্ত মেনে চলতে হবে।

আপনি যদি গুগল এ্যাডসেন্স একাউন্ট পেতে চান তবে শুধুমাত্র এ্যাডসেন্স একাউন্ট পাওয়ার জন্য আবেদন করলেই হবে না। অবশ্যই আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটটি গুগল এ্যাডসেন্স এর কাছে প্রফেশনাল, মানসম্মত ও গুগল এ্যাডসেন্স এর শর্ত গুলো পূরণ করে তারপর উপস্থাপন করতে হবে। তা নাহলে এ্যাডসেন্স পাওয়ার জন্য আপনার আবেদনের কোন গুরুত্ব গুগল এর কাছে নেই। বর্তমানে গুগল বিজ্ঞাপন দাতাদের ক্লিক ফ্রড ও স্পামিং এর হাত থেকে রক্ষা করার জন্য বিজ্ঞাপন পাবলিশারদের জন্য রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া একটু কঠিন করে দিয়েছে।

তাই আপনি যদি গুগল এ্যাডসেন্স পাবলিশার হিসেবে এ্যাডসেন্স একাউন্ট এপ্রুভ করাতে চান তাহলে আপনাকে বুঝতে হবে যে গুগল আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে কি চায়। বেশির ভাগ ব্লগ বা ওয়েবসাইটে এ্যাডসেন্স একাউন্ট এর জন্য অ্যাপ্লাই করার পর বিভিন ধরণের রিপ্লে পেয়ে থাকে। যেমন- Invalid Content, Postal, Page type বা insufficient content ইত্যাদি। আজ আমি আপনাদের জানাবো কিভাবে খুব দ্রুত গুগল এ্যাডসেন্স একাউন্ট এপ্রুভ করানো যায়। গুগল এ্যাডসেন্স একাউন্ট এপ্রুভ করাতে পারছি না, অনেক বার অ্যাপ্লাই করেছি তাও পারছি না। এমন কথা বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে প্রতিনিয়তই শুনতে হয়।

তখন তাদের কথা গুলো শুনার পর যতুটুকু বুঝতে পারি। তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি চোখে পড়ে,  তারা এমন কিছু ছোট খাটো বিষয় বাদ দিয়ে গুগল এ্যাডসেন্স একাউন্ট এর জন্য আবেদন করেছে। যে কাজ গুলো না করলে গুগল কখনোই এ্যাডসেন্স একাউন্ট এপ্রুভ দিবে না। এজন্য গুগল এ্যাডসেন্স একাউন্ট এর জন্য আবেদন করার পূর্বে এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় গুলো জেনে নিন।  আবার অনেকেই প্রশ্ন করেন, ব্লগ বা ওয়েবসাইট ছাড়া গুগল এ্যাডসেন্স পাওয়ার অন্য কোন সহজ উপায় আছে কিনা?

হ্যাঁ আছে, আপনি ব্লগ বা ওয়েবসাইট ছাড়াও উপরোক্ত নিয়ম কাননের তোয়াক্কা না করেই এ্যাডসেন্স একাউন্ট পেতে পারেন খুব সহজেই। এই রকম অনেক গুলো উপায় থাকতে পারে। তবে আমার জানা মতে দুটি পদ্ধতি খুবই সহজ, কার্যকর ও উত্তম। এর মধ্যে একটি হল- ইউটিউব (Youtube) এর মাধ্যমে এবং অপরটি হল হাবপেজ (Hubpage) এর মাধ্যমে। উল্লেখ্য যে আপনি ইউটিউব এর মাধ্যমে প্রাপ্ত এ্যাডসেন্স একাউন্ট আপনার ব্লগেও ব্যবহার করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে শুধু মাত্র আপনার ব্লগের বয়স ছয় মাস হলেই হবে।

কিভাবে ইউটিউব এবং হাবপেজ এর মাধ্যমে খুব সহজে আপনার কাঙ্খিত সোনার হরিণটি হাতের নাগালে পাবেন। এই বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো অন্য আরেক দিন সেই পর্যন্ত আমাদের সাথেই যুক্ত থাকুন। আর আপনি যদি এর আগে এ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট জন্য আবেদন করে থাকেন এবং তা যদি গুগল অনুমোদন না করে। তবে পূর্বে প্রকাশিত আমার গুগল এ্যাডসেন্স নিয়ে লেখা আর্টিকেল টি পড়ুন এবং সেই পদ্ধতি অনুসরণ করুন তাহলে খুব সহজেই এ্যাডসেন্স একাউন্ট পেয়ে যাবেন।

Tags: , , , , , ,

Related posts

Leave a Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.




Top